কলম পাতুরি

ভাবনা আপনার প্রকাশ করবো আমরা

Home » পুজো সংখ্যা ১৪২৯ » ছোটগল্প » একটি ডেডবডি এবং

একটি ডেডবডি এবং

একটি ডেডবডি এবং ছোট গল্প – প্রতুল রীত

রাত তখন অনেক। অমাবস্যার কালো জমাট বাঁধা অন্ধকার। ঝিঁ ঝিঁ র একটানা উন্মত্ত সুর কানে তালা লাগিয়ে দিচ্ছে। বড় রাস্তার কোথাও থেকে  ভেসে আসে কুকুরের ঘেউ ঘেউ। যেন অজানা কোনো ভয়ংকর মুহূর্তের সাবধানবাণী।

   কোত্থেকে রাশী রাশী কালো মেঘ ঢেকে দিচ্ছে গোটা আকাশ। আর সেই মেঘের জাল কেটে বারে বারে নিক্ষিপ্ত হচ্ছে বিদ্যুতের প্রচন্ড হুংকার। হয়তো মুঝলধারে ঝাঁপিয়ে পড়বে বৃষ্টির ফোঁটারা।

অন্ধকার এর ভিড় ঠেলে একটা কালো রঙা স্কর্পিও এসে দাঁড়ায় নার্সিংহোমে র সামনে। গাড়ি থেকে নেমে আসেন একজন।

        ড. বোস হাত ঘড়িতে আর একবার চোখ বুলিয়ে নিয়ে দরজার  লকে খানিক চাপ দিতে মৃদ্যু একটা ক্যাঁচ-চ শব্দ করে দরজা খানিক ফাঁক হয়ে যায়। সেই সঙ্গে হাজারো কেমিক্যালের একটা প্রচন্ড গন্ধ আছড়ে পড়ে ড. বোসের নাকে।  ধীরে ধীরে ঘরটার মধ্যে ঢুকে আসেন তিনি।

       দূরের কোনো গির্জা থেকে ভেসে আসে  একটা বাজার ঢং ঢং শব্দ।  এত দূর থেকেও শব্দটা কানে আসে বোসের।

        ঘরে ঢুকে ড. বোস তাড়াতাড়ি জ্বেলে দেন সবকটা আলো। মুহূর্তের মধ্যে অন্তর্হিত হয় সমস্ত অন্ধকার। আলোয় চোখটা খানিক থিতু হয়ে আসতে এবার ড. বোসের চোখ যায় ঘরের একদম মাঝখানে থাকা একটা বেডের দিকে। উপরে পাতা ধবধবে সাদা একটা চাদর। কেবল তার আড়াল থেকে বেরিয়ে রয়েছে একটা রক্তশূন্য ফ্যাকাসে ফরসা মুখ । মুখের চারপাশে ছড়িয়ে রয়েছে কালো চুল। চোখ বন্ধ। গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন যেন সে। 

ড.  বোস আস্তে আস্তে এগিয়ে যান বেডের দিকে। নজর করেন মুখের দিকে। একটা কেমন যেন একটা গন্ধ নাকে আসে সম্ভবত ফর্মালিনের।এসব গন্ধ অবশ্য ফরেনসিক ডক্টরদের কাছে নতুন নয়। দিনরাতই কাটে ছুরি কাঁচি নিয়ে ; সবে সে সব নরমাল ও.টি টে নয়। এই এরকম শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ময়না কক্ষে। একটি ডেডবডি আর কেমিক্যাল এর তিতকুতে গন্ধে বমি পায় অন্যদের, তবে সেসব অন্য লোকের ক্ষেত্রে।

 ডা. বোসের ও যে প্রথম প্রথম একটু অস্বস্তি লাগত না, তা নয়। তবে এখন আর কিছু লাগে না। শহরের অন্যতম নামকরা ফরেন্সিক ডক্টর তিনি। হাতে ছুরি নিয়ে ঘন্টার পর ঘণ্টা তার কেটে যায় এক্সামিন রুমে। 

        তবে অন্যদিন এর থেকে আজকের ব্যাপার এইটুকুই আলাদা যে অন্যদিন তার সাথে থাকে তার জুনিয়র অখিলেশ মৌলিক। রীতিমতো ব্রাইট স্টুডেন্ট সে। তবে আজ ছুটি তে সে। গিয়েছে দেশের বাড়ি। ড. বোসের ও ছুটিই ছিল। তার জায়গায় শিফ্ট ছিল অন্য ডক্টরের। তবে এই কেসটা একটু আলাদা। একজন অল্পবয়সী যুবতীর একটি ডেডবডি। বিবাহিতা।গলায় ফাঁস দিয়ে মৃত্যু। বাপের বাড়ির তরফ থেকে অভিযোগ এ কীর্তি শ্বশুর বাড়ির জন্য -সোজা কথায় এটা খুন।আর উল্টোদিকে শ্বশুরবাড়ির মত এটা নেহাতই আত্মহত্যা। 

    এরকম কেস হাজার হাজার আসে। তার অধিকাংশরই অমীমাংসিতই রয়ে যায়। তবে এখানে ব্যাপারটা একটু আলাদা ছিল। কারণ মৃতের ঘর থেকে পাওয়া গিয়েছিল একটা চিঠি । আঁকাবাঁকা হাতে, সম্ভবত খুব তাড়াতাড়ি করে লেখা একটা চিঠি। খুব কাছের কাউকে লেখা,মৃত্যুর আগে দ্রুত লিখে যাবার চেষ্টা করেছে ভবিষ্যত পরিণতির কথাগুলো। এহেন চিঠি থেকেই পুলিশ এর অনুমান যে এ মৃত্যু নেহাত আত্মহত্যা নয়। 

         যেহেতু মৌলিক নেই তাই ডক্টর কে অন্য সহযোগী ডাক্তার দেবার কথা বলা হয়েছিল। তবে বোস অবশ্য নেননি। যেহেতু তিনি একজন সিনিয়র ডক্টর, তাই কোনরকম জোরও আসেনি।

       একটি ডেডবডি মুখের দিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকার সময় কেমন যেন একটা অস্বস্তি হয় ড. বোসের। দিনের পর দিন একটি ডেডবডি ঘেঁটে এসেছেন বোস। কই এমনটা তো কোনোদিন হয়নি। বন্ধ চোখদুটো র অন্তরাল থেকে যেন একটা জমাট বাঁধা অন্ধকারের জাল বেরিয়ে আসতে চাইছে।

ড. বোস এবার একটি ডেডবডি পায়ের দিকে সরে আসেন। চাদর টা এই সামান্য উঠে বাঁ পায়ের কিছুটা বেরিয়ে আছে। বুড়ো আঙুল থেকে সরু সুতোয় ঝুলছে একটা  ছোট্ট কার্ড। 

       ড. বোস ঝুঁকে দেখলেন, তাতে ইংরেজি হরফে লেখা। 

      নেম : সুচিস্মিতা বোস।

       এজ: টোয়েন্টি নাইন।

     একপলক দৃষ্টি নিক্ষেপ করে বোস এগিয়ে যান ঘরের অন্য প্রান্তের দিকে। এইসব ডেডবডির দিকে এতক্ষন তাকিয়ে থাকার কোনো মানে হয় না। বরং তাড়াতাড়ি কাজ সেরে ঘরে যেতে পারলেই ভালো। ঘরেতে তার কিছু দরকারি কাজটাজ আছে।

        দেওয়ালে সারি সারি ড্রয়ার। নিদির্ষ্ট ড্রয়ারটার কি হোলে চাবিটা এন্ট্রি করাতে যাবেন এমন সময় হঠাৎ ঘটে গেল একটা অদ্ভুত ঘটনা। তাকে সম্পূর্ণ চমকে দিয়ে ঘরের সব আলোগুলো একবার যেন নেচে ওঠে তারপর অপ্রত্যাশিত ভাবে তৎক্ষণাৎ একটা অদ্ভুত শব্দ করে দপ করে নিভে যায় ঘরের প্রতিকটা আলো। এমন অপ্রত্যাশিত ঘটনায় মুহূর্তের জন্য চমকে ওঠেন বোস। পরক্ষনেই নিজেকে সামলে নেন।

        এতবছর তিনি এই কাজের সঙ্গে যুক্ত। কই এভাবে কোনদিন লাইট অফ হতে তো দেখেননি। তবে আজ কেন ?

         খানিকটা সময় কেবল নীরবে কেটে যায়। শুধু কি লাইটগুলোই অফ হলো ! কারণ ঘরের মধ্যে সেই ঠান্ডা ভাবটা আগের মতোই অনুভূত হচ্ছে। বরং সামান্য বেশী ও হতে পারে। এ.সি তো দেখা যাচ্ছে দিব্যি কাজ করছে।

           ব্যাপার টা হলো কি ! পকেট থেকে ফোনটা বার করলেন বোস। এখুনি একবার দীপক কে ফোন লাগাতে হবে। দীপক এখানকার ফেসিলিটি চার্জ এর সুপারভাইজার। হঠাৎ এরকম আচমকা লাইট অফ হবার কারণটা কি !

           ফোনের নাম্বার টিপে কলিং করে কিন্তু হতাশ হলেন। একটা পিক পিক শব্দ করে কেটে যায় ফোনটা। একটাও টাওয়ার নেই।  

     উফঃ! কি ঝামেলা হলো ! ঘরের ঠান্ডাটা আরো বাড়ছে যেন। বোস মোবাইলে ফ্ল্যাশ অন করে ধীরে ধীরে এগিয়ে যান দরজার দিকে। দরজার লকে বারকয়েক চাপ দেন। কিন্তু না ! দরজা খোলে না।  মনে হয় কেউ যেন বাইরে থেকে বন্ধ করে দিয়েছে সেটা। 

     বারকয়েক দীপক এর নাম ধরে ডাকেন তিনি। কিন্তু অপ্রান্ত থেকে কোন উত্তর ভেসে আসে না। 

অন্ধকার ময়না কক্ষে এ কি ঘটে চলেছে তার সাথে। চিন্তা করতে পারেন না ড. বোস কেননা হঠাৎই অদ্ভুত এই হিমশীতল পরিবেশে ড. বোসের সমস্ত লোমকূপ গুলো সজাগ হয়ে ওঠে যেন। শিরায় শিরায় বয়ে যায় এক অজানা  আশঙ্কা। যেন মনে হয়, এ ঘরের সমস্ত প্রাণ যেন কেউ কেড়ে নিয়েছে। ছড়িয়ে দিয়েছে অন্ধকারের বিভীষিকা।

        ঘরের মাঝখান থেকে একটা খুট করে শব্দ ভেসে আসে। চমকে উঠে বোস পিছনে ঘুরে ফ্ল্যাশলাইট টা ধরেন সামনে। নজরে আসে না কিছু। শুধু আলোর ধাক্কায় কিছুটা অন্ধকার গায়ের হয়। 

       এ কি হচ্ছে আজ। কেমন যেন সব অদ্ভুত মনে হচ্ছে তার আজকে। তার এত বছরের জীবনে এমনটা তো কখনো হয়নি। আর আজ তিনি এমন ভয়ই বা পাচ্ছেন কেন। 

       মুখটা ঘুরিয়ে ড. বোস যেই আবার দরজার দিকে মুখ করেছেন, অমনি একটা শব্দ হলো পিছনে। ষ্পষ্ট।

       ড. বোস চমকে পিছনে তাকালেন। ঘরের একদম প্রান্তের দিকে জ্বলে উঠেছে একটা লাইট। তার আলো কিন্তু স্থির নয়, ক্রমাগত জ্বলছে আর নিভছে। আর তা থেকে ছড়িয়ে যাচ্ছে একটা আলো- আঁধারীর মায়াবী ছটা। 

       এবার ড. বোসের কানে আসে একটা শব্দ। মৃদু গোঙানির মতো। যেন কারোর বুক ফেটে বেরিয়ে আসছে বেঁচে থাকার আকুলতা। কিন্তু না, তিনি ছাড়া তো আর কেউ নেই এখানে। তবে ? বোস অনুভব করেন,  তার কপালে শিরা গুলো বেয়ে নেমে আসছে কয়েক ফোঁটা ঘাম। 

       ঘরের তাপমাত্রা কমেই চলেছে। ঠান্ডা হাওয়ার একটা গুমোট ভাব হাড় পর্যন্ত কাঁপিয়ে দিচ্ছে তার। 

         ড. বোসের ফ্ল্যাশলাইট আস্তে আস্তে সরে যায় ঘরের মাঝখানে। আর একটা ভয়ঙ্কর দৃশ্য দেখে সমস্ত শরীর শিহরিত হয়ে ওঠে তার। মুখ দিয়ে অজান্তেই বেরিয়ে আসে অস্ফুট চিৎকার।

         এ কি ! বেডে শায়ীত সেই মৃতদেহ উঠে বসেছে । সেই সাদা চাদরটা তার গোটা শরীরে জড়ানো। কপালের দুপাশে ছড়ানো চুল। সেই রক্তশূন্য ফ্যাকাসে মুখ। সেই ক্ষীণ আলোতেও বোস দেখলেন , সেই প্রাণহীন দেহটার দুটো চোখ খুলে গেছে। কোটর থেকে বেরোনো সেই চোখের স্থির দৃষ্টি  নিবদ্ধ তার দিকে। 

          ড. বোসের সমস্ত শরীর বেয়ে নেমে আসে শীতল কম্পন । পা টলে যায় তার। নিজের উপর কোন ভারসাম্য নেই তার।প্রচন্ড একটা অজানা ভয়ে তার সমস্ত চেতনা যেন লোপ পাবার উপক্রম।

          মৃতদেহটা এবার অল্প অল্প নড়ে উঠছে। চেষ্টা করছে বেড থেকে মেঝেতে নামার।

         ঠান্ডাটা আরো বাড়ছে। বাইরে শুরু হয়েছে মুষলধারে বৃষ্টি। ক্ষণে ক্ষণে আকাশের বুক বিদীর্ণ করে চমকে উঠছে বিদ্যুতের চমক।

        ঘরের কোণের সেই লাইটখানা তখনও সেভাবেই জ্বলছে নিভছে, যেন একটা ছন্দ ঘিরে ধরেছে তাকে।

**********

বন্ধ দরজাটার দিকে একবার তাকিয়ে থেকে দ্রুত হাতে সেটা খুলে ফেলে রোহিত। মুহুর্তেই গুমোট বাতাসের ঢেউ জাপটে ধরে তাকে। ঘর টা একেবারে অন্ধকার হয়ে আছে। 

জানালা গুলো সব বন্ধ।

সেইসঙ্গে একটা দমবন্ধ করা গন্ধ। 

     পায়ে পায়ে রোহিত এগিয়ে যায় জানালা গুলোর দিকে। তারপর কাঁচের শার্সি টা খুলে টান দেয় খুলে যায় পাল্লাগুলো। একঝটকায় দস্যি ছেলের মতন দৌড়ে ঘরে ঢোকে সকালের নরম রোদ। মুহূর্তে বন্ধ ঘরখানা যেন জেগে ওঠে।

      নিস্তব্ধে ঘরটার এদিকে ওদিকে চোখ বোলায় সে। সমস্ত কিছুই প্রাণহীন নির্জীব মনে হচ্ছে তার। সেই সঙ্গে মনে হচ্ছে সবটাই যেন ধোঁয়াশা, মিথ্যে। 

        সুমি নেই! এটা ভাবতেই বুকটা মুচড়ে উঠছে। আর সবচেয়ে আশ্চর্যের, সুমির মতন এমন একটা মেয়ে এরকম করতে পারে কিভাবে? না,না এটা কখনোই সত্যি হতে পারে না।

       একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে রোহিত।

ঘরের প্রতিটা স্পর্শের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে সুমি। আর সেই মানুষটাই কি না! 

    আকাশভরা আলোতেও চোখের কোনদুটো ভিজে আসে রোহিতের।

       রোহিত এসে দাঁড়ায় ঘরের মাঝে। সেখানটায় ঝুলে রয়েছে একটা উইন্ড চাইম। হাওয়ায় অল্প অল্প দুলছে। রোহিত হাত দিয়ে সেটা একবার দুলিয়ে দেয়। বেজে ওঠে সেটা। ঠিক অনেকটা যেন সুমির খিলখিলিয়ে হাসির মতো। রোহিতের মুখে ও ফুটে ওঠে আলতো হাসির রেখা।

      রোহিতের চোখ যায় দেওয়ালে আটকানো ছবি গুলোর দিকে। দেওয়াল জুড়ে রয়েছে একটা বিরাট বড় রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। যেন তারই দিকে তাকিয়ে রয়েছে। 

      বিছানার একপাশে রাখা গিটার খানা। রোহিতের মনে পড়ে যায় কলেজ ফেস্টের মধুর স্মৃতি গুলোর কথা।

       কলেজ ফেস্টেই প্রথম ওদের আলাপ। সেদিন ছিল ফ্রেশার ওয়েলকাম। এখনো মনে আছে রোহিতের- সুমির পরনে ছিল সেই নীল শাড়িটা। মঞ্চে উঠে দিব্যি গান গেয়েছিল রোহিত। কিন্তু নামার পর যখন প্রশ্নটা ভেসে এসেছিল, ‘ এত সুন্দর সুন্দর গান গাইলি আমাদের কেও একটু শেখা।’

আচমকা এমন প্রশ্নে থতমত খেয়েছিল রোহিত। শেষে অনেক কসরত করে সামাল দিতে হয়েছিল। 

তবে কথাটা কিন্তু রেখেছিল রোহিত। সুমির ছিল দুর্দান্ত গলা। তার গলা থেকে গান শুনলে তৃপ্তি লাগত কানে। রোহিত তাকে শেখাত গিটার। সুমির আঙুলখানা নিয়ে যত্নে বুলিয়ে দিতে সে গিটারের তারে। 

    একসঙ্গে কাটানো সেই দিনগুলো মাথার মধ্যে পাক খেতে থাকে তার। 

লেকের জলে তখন নকশা এঁকে দিচ্ছিল চাঁদের আলো। আকাশের গায়ে টুপটাপ তারারা মিটমিট করছিল। সুমি রোহিতের কাঁধে মাথা দিয়ে জিজ্ঞেস করেছিল, ‘ তুই সারাজীবন আমার সাথে থাকবি তো।’

রোহিত আরও কাছে টেনে নিয়েছিল তাকে । বলেছিল , ‘ সারাজীবন-‘

     কি হলো সেই প্রমিস এর। কই তাকে ধরে তো রাখতে পারল না রোহিত। কি করে তাকে ফাঁকি দিয়ে চলে যেতে পারলো সুমি।

      টেবিলের সামনে রাখা চেয়ারটায় বসে পড়ে রোহিত। নিজেকে প্রচন্ড অপরাধী মনে হয় তার। যদি সে , সুমির সাথে থাকতে পারতো ! হা ঈশ্বর। হয়তো সুমিও তার সাথেই থাকতো তাহলে।

      আনমনে টেবিলে ওপর সার দেওয়া বইগুলোয় দৃষ্টি যায় রোহিতের। ওপরে থাকা একটা বই তুলে নেয় হাতে – কাকাবাবু সমগ্র।

নীচের বইটা – সাতকাহন , সুমির অলটাইম ফেভারিট।

       একটার পর একটা বই তুলে নেয় হাতে। পাতার পর পাতা ওল্টাতে থাকে। খুঁজতে থাকে সুমির হাতের স্পর্শ। একদম নীচের দিকের একটা বইতে হঠাৎ একটা জিনিস চোখে পড়ে রোহিতের।

বইটার মাঝখানের দিকে মোড়া একটা সাদা কাগজ। 

কৌতূহলী রোহিত সেটা তুলে ধরে। খুলে ফেলে সেটা। আর হাতের লেখা দেখেই আশ্চর্য হয়। এ যে সুমির হাতের লেখা। হাত কেঁপে যায় রোহিতের । তাও কোনোক্রমে কাগজে লেখা শব্দগুলো পড়তে থাকে ।

রোহিত,

          জানিনা আবার কবে দেখতে পাবো তোমায়। আদৌও যে পাব! তার কোনো বিশ্বাস নেই। হয়তো যখন তুমি এই চিঠিটা দেখবে, তখন হয়তো আমি অনেক দূরে। জীবনের সমস্ত বাঁধন ছিন্ন করে অনেক অনেক দূরে।

    বেশি কিছু লেখার নেই তোমায়। সত্যি বলতে কি সেই জোরটুকুও পাচ্ছি না। শরীরের প্রতিটা পেশি জানান দিচ্ছে যন্ত্রণার কথা। হয়তো মুখে বললে, ভালো হতো-কিন্তু সে সবের পথ তো কবেই বন্ধ করে দিয়েছে ওরা।

   আমার চোখের সামনেই তোমার দেওয়া মোবাইল টা আছড়ে ফেলেছিল। ভাঙা মোবাইল টার ভেতর থেকে ফুঁড়ে বেরিয়েছিল কেবল নিঃশব্দ আর্তনাদ।

   মাথার ভিতরটা কেমন যেন একটা তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে। সত্যি বলতে কি জীবনে মা-বাবার পরে তোমার থেকে বেশী আর কাউকে ভালোবাসিনি আর এটাই বোধহয় সবথেকে বেশি অপরাধ ছিল। অবশ্য আমি স্বীকার করি, আমাকে তোমার থেকে বেশি আর কেউ ভালবাসেনি। 

           কিন্তু মা বাবার অমতে গিয়ে আমাকে বিয়ে করতে গিয়ে যে তুমি ভুলে গেছিলে সমস্ত সামাজিক নিষ্ঠুরতা। এ সমাজে কেবল একটা মেয়ের বিয়ে হয়ে আসাটা তো বড় কথা নয়। তার থেকেও অনেক বড় কথা- সে কি নিয়ে আসছে।

  টাকা থেকে বড় আর কিছু কি আছে। আমাকে বিয়ে করতে একফোঁটা টাকা তুমি নিও নি।আর তাছাড়া আমাদের অভাবের সংসারে দেওয়ার কিছু ছিল না। কেবল বুকভরা একটা স্বস্তির নিঃশ্বাস আর ভালোবাসা চেয়েছিলাম। হ্যাঁ দিয়েছিলে তুমি আমায়। 

আর সেটাই আমার সব থেকে বড় অপরাধ ছিল। বিয়ে পর পরই তো চলে গিয়েছিলে তুমি কাজে। 

  তোমার তো দোষ নয় তোমাকে তো যেতেই হত। নতুন জায়গায় আমাকে নিয়ে যাবার অত বড় রিক্সটা নিওনি। প্রথমটা একটু জোর করে ছিলাম ভেবেছিলাম তোমাকে ছাড়া থাকবো কি করে পরে ভেবে দেখলাম তোমার ওই কটা মাইনের  চাকরি , নতুন জায়গা তুমি নিজে থাকবে, কোথায় আমাকেই বা রাখবে কোথায়।

   কিন্তু তোমার যাওয়ার পর থেকেই সমস্ত পৃথিবীটা যেন ওলটপালট হয়ে গেল।

 আমার কাছে প্রথম দিন অস্থির করে তোলা হলো। সমাজের সব থেকে প্রাচীন নির্মম নীতি- পণ।              

   প্রথমে ভেবেছিলাম হয়তো নতুন বিয়ে হয়েছে বলেই এমন হচ্ছে পরে সব ঠিক হয়ে যাবে।

   মাকে বলেছিলাম একথা মাও আশ্বাস দিয়েছিল। তোমাকে বলতে পারিনি। ভেবেছিলাম- হয়তো হারিয়ে ফেলবো তোমাকে।

  কিন্তু এমন দাবী এমন কঠোর আর নিষ্ঠুর হয়ে উঠবে তা ভাবি নি। শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন হতে শুরু করলো আমার উপর।

  না কাউকে বলিনি শত দুঃখ কষ্ট বুকে চেপে ধরে কেবল তোমার পথের প্রতীক্ষা করে গেছি।তোমার চিঠি খানা আছে আমার হাতে। 

  বলেছ, আগামী 30 ডিসেম্বর আমার কাছে আসবে- এখানে ফিরে আসবে। 30 শে ডিসেম্বর আসতে এখনো

কয়েকটা দিন বাকি। তবে জানি আমার দিন এবার ফুরালো বলে। শারীরিক অত্যাচার টা আর সইছে না। মাথাটা যন্ত্রনায় ফেটে যাচ্ছে। শরীরের প্রতিটা শিরা উপশিরায় বইছে ক্লান্তির রেশ। 

      একটা কথা বলবো রেগে যাবে না তো – তোমার মা বাবার মুখটা দেখে মনে মনে খুব হাসি পাচ্ছে। 

     যে হাতের প্রতিটা চড় থাপ্পড় সটান আমার গালে এসে পড়ছে সেগুলো কি এতটুকু ক্লান্তি বোধ করে না!

      যাক অনেক কথাই তো লেখা হলো, আবার কে দেখে ফেলবে , লুকিয়ে চিঠি লেখা!!!!

     বিদায়……..

খোলা চিঠি টা নিয়ে স্থবির রোহিত এর নির্বাক কন্ঠস্বর বেয়ে কেবল দলা পাকিয়ে বের হতে চায় গুমোট কান্নার রোল।

‘সুমি ই ই ই’- আর্তনাদ করে ওঠে রোহিত। চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ে কান্নার ঢেউ।

কিন্তু না, না না না।

কান্না নয় , কান্না নয়। 

বিচার, justice।

চিঠিটা পকেটে ঢুকিয়ে খোলা দরজা দিয়ে বাইরে বেরিয়ে পড়ে সে।

কসবা থানা কাছেই। বেশিক্ষন লাগবে না পৌঁছতে।

***********

হঠাৎ একটা গরম নিঃশ্বাস তাকে ঘিরে ধরে যেন। যেন একটা সাপ তাকে বন্ধনে আবদ্ধ করতে চাইছে। গলায় দুটো শক্ত লোহার  বাঁধন অনুভব করে সে। সে লোহার বাঁধন যেন আরো দৃঢ় হতে চাইছে। আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে ফেলতে চাইছে। মুখটা ক্রমশ লাল হয়ে উঠছে। যন্ত্রনায় হাত পা সর্বস্ব দিয়ে খুলে ফেলতে চাইছে সব বাঁধন কে। পৃথিবীটা যেন ছোট হয়ে আসতে। কমে আসছে সমস্ত চেনা পরিধি টুকু…….

হুড়মুড়িয়ে বিছানায় উঠে বসে সুমি। সারা শরীর ভিজে গেছে ঘামে। বুকখানা এখনো উথাল পাথাল করছে। স্বপ্নটা এত সত্যি সত্যি লাগছিল!

অন্ধকার ঘরে খানিক তাকিয়ে থাকে। তারপর ধীরে ধীরে সব ঠাওর হয় তার। আজকাল আলো একদম ভালো লাগে না সুমির। বরং অন্ধকার টাকে অনেক বেশি আপনার , অনেক বেশি কাছের মনে হয়। আলো দেখলেই বুঝি মনে হয়- সে বুঝি মুখ টিপে হাসছে। তার ওপর- তার অসহায়তার ওপর। তারিয়ে উপভোগ করছে সবকিছু। 

কতদিন আগে এখন অবশ্য মনে নেই। সেদিন বাড়িতে কেউ ছিল না। একা ঘরে ফিরেছিল সুমি মায়ের কাছ থেকে। সারা বাড়ি অন্ধকারে ডুবে ছিল। হতচকিত সুমি লাইটের সুইচ গুলোর নাগাল না পেয়ে নিঃশব্দে উঠে এসেছিল দোতলায় তার ঘরে। 

দরজাখানা বন্ধই ছিল। খানিক চাপেই খুলে গেছিল সেটা। ভিতরটা কি মারাত্মক অন্ধকার। মনে মনে বেশ ভয় পেয়েছিল সুমি, তা না মেনে উপায় নেই। এমন হঠাৎ করে সারা বাড়ি অন্ধকার কেন? উত্তর খুঁজতে চাইছিল সে। নিঃশব্দে দ্রুত ঘরে ঢুকতেই তাকে চমকে দিয়ে জ্বলে উঠেছিল ঘরের একখানা আলো। আর পিছন থেকে হাতখানা টেনে ধরেছিল- রোহিত। 

দ্রুত তার দিকে ঘুরে তাকিয়েছিল সুমি। রোহিতের চোখেমুখে লেগে ছিল একটা ছেলে মানুষী হাসি। সেই রকম স্মিত হাসতে হাসতে বলেছিল-

‘হ্যাপি বার্থডে সুমি।’

রোহিতের পিছনে টেবিলখানায় সযত্নে রাখা একটা সাদা কেক। তার মধ্যে থেকে জ্বলছে কয়েক টা মোমবাতি।

জড়িয়ে ধরেছিল রোহিতকে। চোখে চলে এসেছিল জল। 

রোহিত বলে যাচ্ছিল ‘কি হলো সুমি, কাঁদছ কেন?’

সুমি উত্তর দেয়নি। কেবল কান্না খানিক বেড়ে যায়। 

তারপর থেকে অন্ধকার কে আর ভয় লাগে না সুমির। হোক না অন্ধকার। সুমি জানে সেই অন্ধকার ভেদ করে এখুনি হয়তো তার হাতখানা চেপে ধরবে রোহিত।

ধীরে ধীরে বিছানা থেকে নেমে আসে সুমি। আর ঘুম আসবে না হয়তো। অনেক গুলো রাত এভাবেই কেটে যায় আজকাল তার। 

জানালার সামনে এসে দাঁড়ায় সুমি। চোখ রাখে বাইরে। গোটা শহরটায় ছড়িয়ে আছে কেবল ঘুমের চাদর। ঘুম আসলেই কি এমন প্রাণহীন! কই প্রকৃতির প্রাণের ভিড়ে তো কোন ঘুমের চিন্হ নেই। হালকা একটা হাওয়ার দোল লাগে তার গায়ে। আকাশের গায়ে আধখানা চাঁদখানায় চোখ যায় তার। তার স্তিমিত আলো খানিক আলোকিত করার চেষ্টা করছে। 

ঠিক এভাবেই তাকিয়ে থাকত রোহিত- তার দিকে।

‘কি দেখছ অমন করে।’

‘তোমাকে….’

‘আচ্ছা, তাই বুঝি….. আমাকে এত দেখার কি আছে শুনি।’

‘রোহিত হালকা হেসেছিল- এতেই যে মিশে আছে আমার বেঁচে থাকার রসদ।’

সেই হাসিখুশি রোহিতের চোখে মুখে নেমেছিল আঁধারের ভ্রুকুটি যখন তার জবটা চলে গেছিল। সবে সবে লকডাউন হয়েছে। ভাইরাসের ভয়ে নয় কাজ হারিয়ে দুশ্চিন্তায় স্থবির হয়ে গেছিল রোহিত, সাথে সুমি।

হঠাৎ আচমকাই এসেছিল মেইলটা। ব্যাঙ্গালোর থেকে। কাজ জুটেছে। রোহিত রাজি হয়নি প্রথমটা। সুমিকে এখানে ছেড়ে…….

একরকম জোর করেই রোহিতকে দিয়ে মেইল এর রিপ্লাই দিয়েছিল সুমিই। সুমি চায়নি, রোহিতকে ওরকম মনমরা দেখতে। ওভাবে রোহিতকে মানায় না। 

ট্রেনে ওঠার আগে সুমি একবার জড়িয়ে ধরেছিল রোহিতকে।

কেন জানি না, গলা কেঁপে গেছিল সুমির- ‘ খুউব তাড়াতাড়ি ফির।’

রোহিত ও আঁকড়ে ধরেছিল— ‘ কয়েকটা দিন দাও। তারপর নতুন জায়গায় নিজেদের গুছিয়ে নেব কেবল তুমি আর আমি।’

আস্তে আস্তে ট্রেনখানা সচল হয়েছিল। ট্রেনখানা দূরে মিলিয়ে যাবার আগে অবধি সুমি তাকিয়ে ছিল রোহিতের দিকে। তার ফর্সা চোখ মুখে চক চক করছিল কি যেন! জল ছিল কি!

রোহিতের মুখখানা ভেসে ওঠে সুমির মনে। 

আজ রোহিতের থেকে এত দূরে সুমির কাছে কেবল সম্বল তার মনে আঁকা ওই ছবিখানাই।

হঠাৎ সব ভাবনায় ছেদ লাগে। 

কেউ যেন তার দরজায় টোকা দিচ্ছে। কান পাতে। 

‘ বউমা….. বউমা……’

শ্বশুরমশাই।

এত রাতে তার আবার কিসের দরকার। ভাবতেই…. কনুইয়ের কাছে ব্যাথাটা টের পায় সুমি। কাল খাবার সময়ই ঘটেছে।

দরজায় শব্দের প্রহার বাড়ে। সেই সঙ্গে গলার জোরও।

সুমি আস্তে আস্তে দরজার দিকে এগোয়।

*********

বিকট একটা শব্দ করে বাজ পড়ে কোথাও। তার আলোয় ঝলসে ওঠে চারপাশটা।

ঘামে দর দর করে ঘামছেন বোস। ঘামছে ধরেছেন দরজার লকটা। এদিকে ওদিকে প্রাণপণে ঘোরাচ্ছেন সেটা। কিন্তু সেটা অনড়। কোন টানাটানি তেই যেন সেটা আলগা হতে চায়না যেন।

কোন যুক্তি বুদ্ধি এখন যেন মাথায় আসছে না ড. বোসের। যে মৃত দেহ গত প্রায় সাড়ে ন ঘন্টা ধরে প্রাণ হীন সে কি করে উঠে দাঁড়াতে পারে। 

তবে কি !

প্রেত !!

জ্ঞান বিজ্ঞান এর বাইরে যেন আজ হসপিটালএর  নিচের তলার সাত নম্বর ঘরটা। যেন কোন অদৃশ্য জাদু কৌশলে ড. বোস এসে পড়েছেন কোন প্রেত লোকে।

আস্তে আস্তে- খুব ধীরে ধীরে মৃত দেহটা এগিয়ে আসছে বোসের দিকে।

ফোনের ফ্ল্যাশলাইট টারও আয়ু বেশি হয়তো অবশিষ্ট নেই। ফিকে হয়ে এসেছে তার দৃষ্টি।

নির্বাক চোখে বোস তাকালেন মৃত দেহের দিকে। 

দুরত্ব হাত দেড়েক ও নয়। 

প্রাণহীন সেই দেহের মুখাবয়ব থেকে ভেসে আসে কয়েকটা শব্দ।

“চিনতে পারছেন আমাকে।”

ফ্যাশফেসে একটা স্বর। মনে হয় যেন বহু দূর থেকে ভেসে আসছে বোধহয়।

বোসের মুখ দিয়ে অবশ্য একটা কথাও বেরোয় না। ঘরের তাপমাত্রা আরও কমেছে। ভয়ে কাঠ হয়ে গিয়েছে বোসের গলা। সারা শরীর অবশ হয়ে আসতে চাইছে যেন এ কি দেখছেন তিনি। এ কি কোনদিন হওয়া সম্ভব !

এবার সেই মৃতদেহ থেকেই ভেসে আসে চাপা একটা হাসি। তার হাসির রোল ছড়িয়ে পড়ে ঘরের প্রতিকটা কোণায়

” মরা দের আর কে মনে রাখে। তাদের নিয়ে তো যা কিছু করা যায়।  তাই না ডাক্তারবাবু?”

বোসের কন্ঠস্বর চিরে একটা ক্ষীণ জিজ্ঞাসা ভেসে আসে, “মানে….”

বোসের কন্ঠস্বর আবার বুজে আসতে চায়।

“মানে টা তো আপনার অজানা নয় ড. ধ্রুবজ্যোতি বোস। একাধারে স্বনামধন্য পোস্টমর্টেম ডক্টর অন্যদিকে আমার শ্রদ্ধেয় শ্বশুর মশায়ের বাল্যবন্ধু। যার একান্ত অনুরোধে একটা জলজ্যান্ত খুনকে মিথ্যে ভাবে সুইসাইড বলে চালানোর পরিকল্পনা। যাতে কোন সমস্যা না হয় তার জন্য সহকারীটিকেও অন্য জায়গায় পাঠানো। সব কিছুই তো বেশ ভালোই ছকেছিলেন দুইজনে মিলে।”

মুখ দিয়ে কোন কথা বেরোয় না বোসের।

বলে চলে মৃতদেহ।

” ভেবেছিলেন কেউ কিচ্ছু জানতে পারবে না। অপরাধীরা বেশ জাল গলে পার হয়ে যাবে। সব বাধা ঘুচবে। কি তাইতো?”

 কিছুক্ষণ চুপ করল সে। তারপর সেই একই ফ্যাশফেসে গলায় বলে চলল সে,

” প্রথমে ভাবলাম নিজেই শাস্তি দেব অপরাধী গুলোকে। আপনাকে দিয়েই একেবারে শুরু করবো। তারপর ভাবলাম, যে মেয়েটা কিনা এত অত্যাচার সহেও মুখ ফুটে পুলিশের কাছে যেতে পারেনি, এমনকি নিজের সবথেকে আপন মানুষটাকেও যে এব্যাপারে একটা বিন্দু ও মুখ খুলতে পারেনি- সে আবার শাস্তি দেবে নাকি।

আপনাকে তাই এটাই অনুরোধ কেবল সত্যিটা সবাইকে দেখাবেন। আপনার দেখানো সত্যির আশাতেই নাই বসে রইলাম

আর তা যদি একান্তই নাই হয় তো রইলোই  আপনার বিবেক আর বিশ্বাস।

উপর থেকে একজন হয়তো ঠিক দেখছেন সবকিছু। যত্ন করে সব হিসেব লিখে রাখবেন চুপটি করে………

কথা শেষ হয়ে আসে তার …. এক পা এক পা করে পিছিয়ে যেতে থাকে মৃত দেহটা। 

তারপর একটুক্ষণ দাঁড়ায়। মুখটা ড. বোসের দিকে তাকিয়ে খুব হালকা কন্ঠে বলে ওঠে,” রোহিত এর সঙ্গে দেখা হলে বলবেন- সমস্ত কষ্টের মলম আমি পেয়ে গেছি। ও যেন ভালো থাকে।”

বিহ্বল ড. বোসের বিস্ফারিত দু চোখের সামনে মৃত দেহটা আবারো শায়িত হয় নিজের বিছানায়। ড. বোসের সমস্ত অনুভূতি র ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে আসতে থাকে। চোখটা কেমন ঝাপসা হয়ে আসে তার। বড্ড ঘুম লাগছে……. মাথাটা ঘুরছে। 

চোখ যখন আবার খুলল তখন গোটা ঘরটা আবার ভরে উঠেছে লাইটের আলোয়। মেঝে থেকে দ্রুত উঠে বসেন ড. বোস। ফোনটা খানিক দূরেই পড়ে আছেন। মাথাটা ব্যাথায় টনটন করছে।

 কিন্তু ড. বোস দ্রুত উঠে দাঁড়ালেন।

বড় বড় পা ফেলে এগিয়ে গেলেন একটি ডেডবডি টার দিকে। 

নিষ্প্রাণ দেহে কোন প্রাণের অস্তিত্ব টুকুও নেই। ঝুঁকে পড়ে বোস লক্ষ্য করেন গলার দাগটা। রক্ত জমাট বেঁধে লাল হয়ে গিয়েছে সেখানে।

মেঝেতে পড়ে থাকা মোবাইল টা কুড়িয়ে নেন তিনি। রাত এখনো পেরোয়নি। মোবাইল খানা পকেটে পুরে দেন। তারপর নিজের ড্রয়ারের দিকে এগিয়ে যান বোস। 

জীবন্ত একটি ডেডবডি! সত্যিই কি ওই শায়িত মৃতদেহটা তার সাথে কথা বলেছে। কিন্তু অবিশ্বাস করেন কি করে? কোটর থেকে প্রায় বেরিয়ে আসা সেই চোখ গুলো মনে করে শিউরে ওঠেন। ও চোখ ওই চোখের আকুতি, মিথ্যে বলবেন কি করে?

দ্রুত হাতে নিজের ইন্সট্রুমেন্ট গুলো বার করে আনেন ড. বোস। গুছিয়ে নিতে থাকেন কাজের জন্য।

 ঘটনা গুলো সত্যি ছিল না কি কল্পনা তা তিনি জানেন না। কেবল একটা কথাই এখন মনে হচ্ছে তার- দ্রুত ফরেনসিক করে রিপোর্ট তৈরি করতে হবে। যদি সত্যিই খুন হয় তাহলে নিশ্চয়ই বোঝা যাবে- পরীক্ষায়।

একটি ডেডবডি এবং ছোট গল্প – সমাপ্তি

আপনাদের লেখা আমাদের ওয়েব সাইটে জমা দিতে গেলে, অনুগ্রহ করে আমাদের লেখা-জমা-দিন মেনু-তে ক্লিক করুন ও নিজেকে Author হিসেবে Register করুন এবং আমাদের পরবর্তী আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ অনুসরণ করুন।

error: Content is protected !!